Tuesday, 7 February 2017

যাপিত জীবনের গল্প ২

রাতে খাবার টেবিলে গল্প হচ্ছে, গরমের ছুটিতে কোথায় কোথায় যাওয়া যায়, কি কি করা যায়, ইত্যাদি নিয়ে। আর সব ইউরোপবাসীদের মত আমরাও সারা বছর গরমের ছুটির পানেই তাকিয়ে থাকি। মেয়ে আহ্লাদে গলে বাবা কে বলছে,
আমি দু সপ্তাহ এমেরিকায় যেতে চাই আর দু সপ্তাহ বাংলাদেশ। আমি তো তোমার একমাত্র বাচ্চা। হ্যাঁ না বাবা।
বাবা স্বভাব সুলভ গলায় বললো, একমাত্র বাচ্চা দেখে তুমি এতো সব বেশি পাচ্ছো।
ঝেঁঝেঁ মেয়ে জবাব দিলো, কোথায় সব বেশি পাচ্ছি বলো? কোথায়? কাল ও চিকেন খেয়েছি এখন ও চিকেন খাচ্ছি। আমি কি রোজ লবস্টার আর গলদা চিংড়ি খাই?


বাবা বললো, তোমাকে কিছু বললে, তুমি কথা শোন না, তুমি ভাবো বাবা – মা বোকা, তাই না? তোমার বয়সে আমরাও তাই ভেবেছি। এখন জানি, বাবা মায়ের কথা যদি শুনতাম, তাহলে আরো ভাল থাকতাম।

মেয়ে ফট করে বলে বসলো, তুমি বেশি বোকা না, মা বেশি বোকা।

মা ঘুরে তাকাতেই মুখে তাড়াতাড়ি কূটনীতির হাসি এনে বলে, মজা করছিলাম।

মা সিরিয়াস গলায় বললো, তুমি মোটেই মজা করছিলে না।

ধরা পরা হাসি দিয়ে বলে, তুমি আসলে মাঝে মাঝে ভীষন বেশি বোকা, অঙ্ক, ফিজিক্স, কেমেস্ট্রি, বায়োলজি কিছুতেই তো আমাকে হেল্প করতে পারো না।

মা বললো, তাই! বাসায় তাহলে বেশি জ্ঞানী কে?

গর্বের সাথে বললো, আমি তারপর বাবা, তারপর তুমি।

মা বললো, মাঝে মাঝে এক্সামে তুমি রেড পাও, তাহলে তুমি কি করে হবে!

বিজ্ঞের গলায় বললো, যেগুলো আমি প্রথমে রেড পাই, সেগুলো পরে আমি পেরে যাই, জানো না। কিন্তু মাঝে মাঝে তো আব্বুও কিছু কিছু জিনিস পারে না, বলে স্কুলে টিচারের কাছে দেখে নিও। তাই, বুঝেছো?


Sunday, 29 January 2017

ডাচ শিক্ষা ব্যবস্থায় গ্রেডিং

ডাচ শিক্ষা ব্যবস্থায়, প্রথম দ্বিতীয় তৃতীয় ব্যাপার গুলো নেই। আছে শুধু পাশ ফেইল। সেটা ও লেখে অত্যন্ত পরিশালীত ভাষায়। “ভাল” “যথেষ্ঠ” “যথেষ্ঠ নয়”। রেজাল্ট কার্ড হাতে নিয়ে পিতা মাতাদের একজনের সাথে আর একজনের তুলনা দেয়ার ব্যবস্থাটাও কম। রেজাল্ট হয় দু- তিন ধরে, প্রতিটি গার্জিয়ানের সাথে আলাদা এপয়ন্টমেন্টের মাধ্যেমে আলোচনা করে রেজাল্ট হাতে দেয়া হয়, তাই একজন গার্জিয়ানের সাথে আর একজন গার্জিয়ানের দেখা হওয়ারও সুযোগ হয় না। তার চেয়েও বড় হলো, বাচ্চারা সবাই ইউনিক, একজনের সাথে একজনের তুলনা হয় না, প্রত্যেকের মধ্যেই ভাল কিছু আছে সেটা সে বয়সেই তাদের শিখিয়ে দেয়া হয়। মেঘ কে কিছু বলতে গেলেই গলার রগ ফুলিয়ে বলবে, তুমি আমার সাথে অন্যের তুলনা করছো, জানো এটা কতো খারাপ?
প্রতিযোগিতাকে এখানে অসুস্থ মনে করা হয় বিধায় এটাকে অনুৎসাহী করা হয়।
আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা অনেকটাই পাশ-ফেইল, বেশি নম্বরকম নম্বর, বই গেলানো নির্ভর এ  নিয়ে আমাদের সংস্কৃতির সাথে ওদের সংস্কৃতির যুদ্ধ ও হয়ে যায়।  
একবার মেঘলার ক্লাশে একজন ভারতীয় বাচ্চা পরীক্ষায় নম্বর একটু কম পাওয়াতে কাঁদছিলো। সাধারনতঃ বরাবর সে বেশ ভাল নম্বর পায়।
টিচার অবাক হয়ে জিজ্ঞেস করেছে, তুমি কাঁদছো কেন?
মেয়েটি বললো, আমি অন্যের চেয়ে নম্বর কম পেয়েছি, মা জানলে অনেক রাগ করবে।
টিচার আরো অবাক হয়ে বললো, কেন? কেন বকবে তোমাকে? কোন কোন বিষয় কি থাকতে পারে না যা তুমি অন্যদের থেকে কম জানতে পারো? সব যদি জানবেই তবে স্কুলে আসবে কেন? স্কুলে তো শিখতেই আসো, নাকি?
এমনও হয়েছে, এক ভারতীয় অভিভাবক স্কুলের টিচারকে বলেছে, তোমার ক্লাশে যা পড়ানো হয় সে সব তো আমার বাচ্চা সব জানে। তুমি ওকে ওপরের ক্লাশে দিয়ে দাও।
টিচার বিনয়ের সাথে বলেছে, তোমার বাচ্চা অনেক জানে বটে কিন্তু সব তো এখনও জানে না। তুমি ওকে আরামে আমার কাছে ছেড়ে দাও। ও কি জানে আর কি জানে না, সেটা আমি দেখে নেবো, সে জন্যে আমি আছি।
হাসতে হাসতে খেলতে খেলতে প্রাথমিক শিক্ষা বলতে যার গল্প ছোটবেলা থেকে শুনে এসেছি তার চাক্ষুস কিছুটা রুপ এখানে দেখতে পেয়েছি। একশ তিন জ্বর নিয়েও বাচ্চারা স্কুলে যেতে পাগল থাকে। নিজের মেয়েকেও ঔষধ সুদ্ধ স্কুলে দিয়ে এসেছি, টিচার বলেছে, বেশি খারাপ হলে আমি তোমাকে ফোন করে দেবো, এসে নিয়ে যেও।
স্পেন থেকে বেড়িয়ে এসেছি একবার, প্লেন থেকে নেমে বাড়ি এসেই মেঘ বললো, মা, এখন তো টিফিন পিরিয়ড, আমি স্কুলে চলে যাই?
সেই দিনটা ওর ছুটি নেয়া ছিলো স্কুল থেকে। ও বাড়ি থাকতে চাইলো না, আমি দুপুরে স্কুলে দিয়ে এলাম।
মেঘের ক্লাশে তিনটে গ্রুপ ছিলো। সবুজ, বেগুনি আর কমলা। আমরা আমাদের দেশীয় কায়দায় এগুলোকে মেধাবী, মাঝারি আর দুর্বল হিসেবে দেখার চেষ্টা করলে মেঘ আমাকে বললো, এরকম কোন ব্যাপার নয় মা।
সবুজ যারা তারা তাদের পড়া শেষ হয়ে গেলে, বেগুনিদের সাহায্য করবে। আর বেগুনি যারা তারা তাদের হাতের কাজ শেষ করে কমলা গ্রুপকে সাহায্য করবে। সবাই ভাল ক্লাশে, সবাই এক সাথে পড়বে, কিন্তু সবাই সবাইকে সাহায্য করবে। সবুজ যারা তারা তাদের পড়ার বাইরেও টিচার থেকে অন্য পড়া পাবে। ব্যাপারটা আদতে তাই, দুর্বল গ্রুপকে সবল গ্রুপ সাহায্য করবে কিন্তু ছোট বেলাতেই বাচ্চার ব্রেইনকে সুপারলেটিভ কিছু ঢুকিয়ে দিয়ে ওয়াশ করে দেয়া হয় নি। সবাইকে সমান সমান রাখার চেষ্টা করা হয়েছে। যার যার ক্লাশ ওয়ার্ক আগে শেষ হয়ে যাবে সে এক্সর্টা পড়া পাবে মানে সবুজ গ্রুপ তাদের মেধানুযায়ী কিছুটা বেশিই পড়বে। অনেকটা স্বীকৃত মনটেসরি (Montessori) পদ্ধতি। কিন্তু সবুজ মানেই মেধাবী এই চিন্তাটা বাচ্চাদের মাথা থেকে সযতনে সরিয়ে রাখার চেষ্টা করা হয়েছে।

প্রাইমারি স্কুলে বাচ্চাদের কোন বই খাতা থাকে না বাড়ি থেকে ছোট একটা স্কুল ব্যাগে ওয়াটার বোটল, জুসের প্যাকেট, আর টিফিন বক্স নিয়ে যায়, নিয়ে আসে পড়ার উপাদান (Material) স্কুলেই থাকে, সেখানেই পড়ে, লিখে, সেখানেই জমা দিয়ে আসে ছোট ক্লাশে বেশীর ভাগই পাজল মেলানো, লেগো দিয়ে কিছু বানানো, ডুপ্লো, ছবি আঁকা, প্লে ডো দিয়ে বিভিন্ন কিছু তৈরী, রঙ করা, আপেলের সাথে আপেল দিয়ে, পিয়ারের সাথে পিয়ার দিয়ে গুনতে শেখানো, সারি শেখানো হয় টিচাররা বলে এ দিয়ে সূক্ষ্ণ ভাবে অঙ্ক শেখানো শুরু হয় প্রচুর পরিমানে রঙিন কাগজ সাথে কেঁচি, আঠা দিয়ে বাচ্চাদের দেয়া হয় ক্লাশে, এসো নিজে বানাই, যেটাকে কারু শিল্প বলি আমরা। প্রতি ক্লাশে বিশ থেকে পঁচিশটা বাচ্চা থাকে, আর দুজন টিচার। একজন দায়িত্বপ্রাপ্ত আর একজন শিক্ষানবীশ, যে তার পড়াশোনার ব্যবহারিক পর্বটি তখন করছে। পাশ করে গেলে হয়ত এখানেই চাকরি হয়ে যেতে পারে।

কারু শিল্প ক্লাশের জন্যে মাঝে মাঝে পুরো দুপুরের পরিকল্পনা রাখা হয়। অনেক সময় বাবা মায়েদের কারু শিল্প দুপুরে সাহায্য করতে বলা হয়। বাচ্চারা আনন্দের সাথে দু হাতে, গায়ের এপ্রনে রঙ মেখে, আঠা মেখে পাখি, মুরগী, প্লেন, ফুল বানাতে থাকে। কোন বাচ্চার হাতের কাজ কতোটা পরিস্কার, সে কি ভাবছে, কোন দিকে ঝোঁক, কি দিয়ে খেলতে ভালবাসছে তা খুব গভীর ভাবে পর্যবেক্ষণ করে টিচাররা তা লিখে রাখে। এখানে বাচ্চাদের রিপোর্টের তিনটে ভাগ হয়, সামাজিক উন্নয়ন, মানসিক উন্নয়ন আর পড়াশোনা। ডাচ এডুকেশানে একজন মানুষের জন্যে এই তিনটা ভাগই অত্যন্ত জরুরীসামাজিক উন্নয়ন ভাগে থাকে বন্ধুদের প্রতি আচরণ, ক্লাশের অন্যদের সাহায্য ইত্যাদি, স্কুলের অন্যদের প্রতি ব্যবহার, মানসিক উন্নয়ন বিভাগে দেখে, বাচ্চার নিজের ভাল লাগা, মন্দ লাগা তার বয়সানুযায়ী হচ্ছে নাকি, তার হাসি, কান্না, রাগ আবেগ তার বয়সের সাথে তাল মিলিয়ে উঠানামা করছে কি না, শারীরিক গঠন, উন্নয়ন সব দেখা হয় আর পড়াশোনাতে দেখা হয় তার মেধানু্যায়ী সে আশানুরূপ ফলাফল করছে কি না। সবুজ গ্রুপের সাথে কমলা গ্রুপের তুলনা নয়, কমলার মধ্যে তার কর্মক্ষমতা কেমন। এই বয়স থেকেই কোন বাচ্চা ভবিষ্যতে কি ধরনের পড়াশোনা, পেশায় যেতে পারে, সাফল্য আসবে কোন দিকে সেই দিকটি নির্নয় করা হয় বা দিক নির্দেশনা দেয়া বা ধরা হয়ে থাকে।

যদিও প্রাইমারী স্কুল শেষ হওয়ার আগে সরকারী ভাবে সারা দেশ জুড়ে একটি মেধা নির্নয় পরীক্ষা নেয়া হয়। সেই পরীক্ষার ফলাফল আর ক্লাশের পরীক্ষার ফলাফল দুটোকে তুলনা করে সেকেন্ডারী স্কুলের গ্রেড নির্নয় করা হয়। কেউ যদি কোন কারণে সরকারী পরীক্ষা রেজাল্ট খারাপ করেও ফেলে তাহলে স্কুলের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হবে, সরকারী পরীক্ষার মার্কস নয় আবার উল্টোও হতে পারে। সেকেন্ডারী স্কুলে মেধাবী, মাঝারী, কম মেধাবী হিসেবেই ক্লাশ করানো হয়। তবে সেটা যে কোন সময় পরিবর্তন হতে পারে। মেধাবী হিসেবে কেউ গ্রেড পেয়ে লাগাতার পরীক্ষা খারাপ করলো তবে তাকে মাঝারী’তে নামিয়ে দিতে পারে। আবার মাঝারিতে ভাল রেজাল্ট করলে মেধাবীতে তুলে দিতে পারে। সব সময় বাচ্চার ক্যাপাবলিটাকেই দেখা হয়। এটা বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্তই আসলে চলতে থাকে। পারছো না জায়গা ছেড়ে দাও, তুমিও কমর্ফোটেবল থাকো, অন্যেও সুযোগ পাক। হতাশা দিয়ে, বিষাদ দিয়ে জীবন গড়ো না। পড়াশোনায় হচ্ছে না, টেকনিক্যাল লাইনে দেখো, কিংবা আরো অন্য কিছু। এতো বড় জীবনটাকে, বইয়ের পাতায় সীমাবদ্ধ করে দিও না।  

প্রাইমারীতে বাচ্চাদের স্কুল ব্যাগ এর একটি নমুনাঃ 


Wednesday, 11 January 2017

সাম্প্রতিক বির্তকঃ নারীবাদী বনাম মানবতাবাদী

http://seralekha.com/news/%E0%A6%A8%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A7%80%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%A6%E0%A7%80-%E0%A6%AC%E0%A6%A8%E0%A6%BE%E0%A6%AE-%E0%A6%AE%E0%A6%BE%E0%A6%A8%E0%A6%AC%E0%A6%A4%E0%A6%BE%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%A6%E0%A7%80



একটি গালি খাওয়ার পোস্ট

সাম্প্রতিক বির্তকঃ নারীবাদী বনাম মানবতাবাদী

বন্ধুরা ভিন্ন মতামতের প্রতি শ্রদ্ধা রাখবে এই আশাতেই আমার বক্তব্য লেখা আলোচনাযুক্তি আসবে, কিন্তু গালি, মনোমালিণ্য, বন্ধু বিচ্ছেদ প্রার্থণীয় নয় ব্যক্তিগত কোন আলোচনা কিংবা বিষয় ও এটি নয়, এটুকু বন্ধুরা বুঝে নেবে সেই আস্থা রাখছি

ছেলে বন্ধুরা ট্রল করছে, কোননারীবাদীদেখে নি যার মুখেমেকাপনেই কেন রে ভাই, মেকাপ করলে কি কালো কে কালো আর সাদা কে সাদা বলা বারণ? কোন শাস্ত্রে আছে সেটা? সুন্দর সাজলে, শাড়ি পরলে চলমান অন্যায়ের প্রতিবাদ করা যাবে না? দুইয়ের মধ্যে বিরোধ কোন জায়গায়? পোশাক কি হবে, শাড়ি না জীন্স সেটা ব্যক্তিগত কমফোর্টের ব্যাপার, আবহাওয়া আর পরিবেশে ও ম্যাটার করে। নাগরিক অধিকার হিসেবে সচেতনতা কি পোশাক কিংবা মেকাপের ওপর নির্ভর করে নাকি? আর এ কথাই বা প্রতিষ্ঠিত হবার কারণ কি, যারা যারা নিজের অধিকার সর্ম্পকে সচেতন তারা আলাদা ধরনের মানুষ, তাদের পোশাক বা আচরন আলাদা হতে হবে!
প্রসঙ্গত একটা গ্রুপের আলোচনা মনে পরছে, কেউ একজন এ ধরনের একটা বক্তব্য প্রতিষ্ঠা করার চেষ্টা করছিলো, উচ্চ পদে আসীন, প্রতিষ্ঠিত নারীদের হীরের গয়না, দামী শাড়ি এগুলো মানায় না। এগুলো ধনীর গৃহ বঁধূদেরই বেশি মানায়। সেখানেও প্রতিবাদ করেছিলাম, হীরের গয়না, আইফোন, বিজনেস ক্লাশে ভ্রমণ, পাঁচ তারা হোটেলের আয়েশ এগুলো যার যার ব্যক্তিগত অভিরুচি। কাকে কি মানাবে কিংবা কার কি প্রায়োরিটি জীবনে সেটা বাইরে থেকে ঠিক করে দেয়ার, কিংবা এ ধরনের প্রথা তৈরী করে দেয়ার আমরা কে? এই জাজমেন্টাল দৃষ্টি ভঙ্গীর পরিবর্তন আসার কি সময় আসে নি? মেয়েদের উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা হওয়া একটা আলাদা কিছু সেটা আর কতকাল একটা ব্র্যাকেটের মধ্যে থাকবে? হীরের গয়না’র শখ বা বিজনেস ক্লাশে ভ্রমণের শখ কেন ত্যাগ করতে হবে এই অপরাধে? কারো কাছে মনে হতেই পারে, আমার সামর্থ্য আছে আমি আরাম করে ভ্রমণ করবো, আই ওয়ার্কড ফোর ইট। আবার কেউ ভাবতে পারে না সে টাকায় আমি অনেক বিলাসী হোটেলে থাকবো, আমার সেটাই বেশি পছন্দ।

কাল বলেছি পাহাড়চূড়াই ভালো আজ হয়তো সমুদ্রটাই চাই
দুয়ের মধ্যে বিরোধ তো নেই কিছু মুঠোয় ভরি গোটা ভূবনটাই

মেয়ে বন্ধুরা ট্রল করছে, “মানবতাবাদী” শব্দটি নিয়ে। হ্যাঁ আমিও স্পষ্টই ভাবছি, “নারীদিবস”, “মেয়েদের মেধাতালিকা”, “মেয়েদের মধ্যে প্রতিযোগিতা” “নারী প্রধানমন্ত্রী” “নারী লেখিকা” ইত্যাদি শব্দ গুলো কে পেছনে ফেলে সামনে তাকানোর সময় আমাদের এখন হয়েছে। “প্রধানমন্ত্রী” একটি পদ যা যোগ্যতা দিয়ে আয়ত্ব করতে হয়, এর মধ্যে নারী পুরুষের প্রসঙ্গ আশা খুবই অবান্তর। “স্টেফি গ্রাফ” একজন “স্টেফি গ্রাফ” কারণ তিনি খেলায় অন্য ধরনের হারিয়েই “স্টেফি গ্রাফ” হয়েছেন, নারী হওয়ার কারণে নয়।

তাহলে এখন প্রশ্ন, সমাজে কি নারী – পুরুষের কোন বৈষম্য নেই তবে?

কবিতায় ফিরি আবার,  

আমাদের দেশে হবে সেই ছেলে কবে কথায় না বড় হয়ে কাজে বড় হবে ?
মুখে হাসি, বুকে বল তেজে ভরা মন "মানুষ হইতে হবে" --- এই তার পণ

বৈষম্য কোথায় না আছে? সাহিত্য – সংস্কৃতি যাকে সমাজের দর্পন হিসেবে ধরা হয়, তাতে শরৎচন্দ্র থেকে বঙ্কিম, তারাশঙ্কর থেকে রবি ঠাকুর মেয়েদের সাজগোজ আর রান্নাবান্না, সেবাযত্ন, বড়ি আচারে’র ওপরই আলোকপাত করে গেছেন। এখনো সিনামের হিট গান মানে, মেয়েদের ট্রল করা। গাউছিয়া, বইমেলা, বৈশাখের উৎসব মানেই মেয়েদের হেনস্থা। তনু, খাদিজা, পূজা তো এই বৈষম্যেরই বলি। পুলিশ অফিসারের স্ত্রী হয়েও রক্ষা পায় নি “মিতু”। মেয়েটি যতই প্রগতিশীল চিন্তা ভাবনা রাখুক না কেন, এক সাথে চারজন ছেলে ঘিরে ধরলে কীভাবে আত্মরক্ষা করতে হবে সেই প্র্যাক্টিক্যাল শিক্ষাটাই এখন তার জন্যে জরুরী। শুভ সংবাদ হলো, অনেকেই এই ব্যাপারটা অনুধাবন করেছে এবং মেয়েরা এখন আকছার মার্শাল আর্টের ক্লাশ করছে। অত্যাচারের প্রতিবাদ হতে হবে শক্তি। কেউ এক ঘুষি মারলে তাকে তিন ঘুষি মেরে শুইয়ে দেয়ার মত শক্তি অর্জন করতে হবে।

প্রতিকূলতা মেয়েদেরই বেশি, সর্ব সমাজে। কারণ মেয়েদের গর্ভ ধারণ করতে হয়। নারী শরীরই নারীর প্রধান প্রতিকূলতা যা প্রকৃতি তাকে দিয়ে দিয়েছে। তার প্রতিবাদের ভাষাও অন্যরকম হতে হবে। এই বিজনেস ওয়ার্ল্ডে কেউ কাউকে পাশ দেয় না তাই কারো কাছ থেকে কোন সহানুভূতি কিংবা সাহায্যের আশা দূরাশা মাত্র। আবার এখানে কেউ কাউকে আটকেও রাখতে পারে না তাই ইচ্ছে থাকলে কারো সাহায্য ছাড়াও এগোনো সম্ভব। আমি “নারী” আমাকে পাশ দাও, কিংবা আমাকে অত্যাচার করো না, এ ধরনের কিছু আসলে কি কাজে এসেছে না আসে? নিজের যোগ্যতায় যারা সামনে এগোচ্ছে তারা জানে জায়গা তৈরী করে নিতে হয়। এর উদাহরণ হিসেবে বহু নারীর নাম নেয়া যায় আমাদের বাংলাদেশেই। “নারীবাদী” বলে নিজেকে আলাদা ট্যাগ না দিয়ে, বরং নিজেকে কাজে প্রমান করে দেয়াটাই হবে কাজের কাজ। “মেয়েদের” মধ্যে আমি প্রথম হওয়ার চেয়ে “সবার” মধ্যে আমি প্রথম হওয়াটাই আমার দৃষ্টিতে অন্তত শ্রেয়।

আমাদের সময় ঢাকা ভার্সিটিতে এটা খুবই প্রতিষ্ঠিত ছিল, দু’ একটা বিচ্ছিন্ন ঘটনা বাদে “ফার্স্ট ক্লাশ” মেয়েদের দখলে ছিলো কারণ মেয়েরা প্রচন্ড উচ্চাকাংখী ও পরিশ্রমী ছিলো যেটা ছেলেরা ছিলো না। তারা আড্ডা দিয়ে, মিছিল করে, মেয়েদের পেছনে বখাটেপনা করে সময় নষ্ট করতো।

তবে, আলোচনা খুবই দরকারী, সময়পোযোগীকিছুটা সামনে আমরা এগিয়েছি কিন্তু আরো সামনে আসতে হবে। এতো বাস্তব থেকে উদাহরণ টানে আজকাল সবাই। হ্যাঁ আমিও বলছি, বিয়ে করে মেয়েকেই শ্বশুর বাড়ি যেতে হবে কেন? মেয়েকেই কেন ছেলের বাড়ির সাথে মানিয়ে নেয়ার স্ট্রেসের মধ্যে দিয়ে যেতে হবে? সব দায় কেন মেয়ের ওপর বর্তায় বা বর্তাবে? এই আলোচনা, প্রতিবাদ, সচেতনতা তৈরীর চেষ্টা আমাদেরকে চালিয়ে যেতে হবে।

আমরা যদি না জাগি মা কেমনে সকাল হবে?
তোমার ছেলে উঠলে গো মা রাত পোহাবে তবে!'

হায় কপাল আমার, এখানেও ছেলেকেই বলা হয়েছে নতুন সূর্য আনতে। সেই উদাহরণ টেনেই বলছি, জানি সমাজ একদিনে পরিবর্তন হয় না তাই লড়াই চলতেই থাকবে। বারবার বারবার কথাগুলো উচ্চারণ করতে হবে যাতে মানুষের চিরাচরিত চিন্তায়, প্রথায় আঘাত পরে, চেতনা হয়, বৈষম্য গুলো অনুধাবন করতে পারে, নজরে আসে। তবেই যদি কিছু হয়। সেই ইশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর কিংবা রাজা রামমোহন রায় তো আর নেই যারা আমাদের হয়ে লড়তে আসবেন। ঠাকুর বাড়ি ও নেই সমাজকে তোয়াক্কা না করে মেয়েদের – বউদের পড়াশোনা, গান বাজনা চর্চার সুযোগ দেবে। যদিও ঠাকুর বাড়ি কখনোই মূল সমাজের প্রতিনিধিত্ব করে নি। তারা সকল থেকে আলাদা তাদের সমাজ গড়ে নিয়েছিলো

আজকের শ্লোগান হোক আবারো, মানুষ হওয়ার শ্লোগান।

আর নারী নয় আর পুরুষ নয়
পথে যখন নেমেছি তখন সকলই মানুষ হয়
হবেই হবে জয় একদিন নিশ্চয়

১১/০১/২০১৭


Thursday, 22 December 2016

সেদিন এক ডাচ বন্ধুর বাড়ি নিমন্ত্রন ছিলো। অনেক রকম মাছ খাইয়েছে, বিভিন্ন পন্থায় রেঁধে, বেকড, গ্রিলড, কুকড, স্মোকড। যেমন মাছের স্বাদ, তেমন সস আর পরিবেশন। সবাই খুব আনন্দ করে খেয়েছি। বিশেষ করে মেঘের উচ্ছাস ছিলো দেখার মত। প্রায় প্রতি সপ্তাহান্তে এদিক ওদিক নিমন্ত্রনে ভাল মন্দ খেয়ে খেয়ে এতোটাই অভ্যস্ত হয়ে গেছে সে, এগুলো যে বিশেষ কিছু তা আর সেভাবে অনুভবই করতে পারে না।

সেই অভ্যস্ত গলি থেকে বের হয়ে, কয়েকবার বললো, ওরা অনেক খেটেছে, হ্যাঁ না মা? কি ভাল রান্না আর কি সুন্দর পরিবেশন। আমাদের বাড়িতে যখন ওদের ডাকবে আমিও তোমাকে সাহায্য করবো, অনেক সুন্দর করে সব সাজাবো, ওকে মা?

পরদিন আমি ঘরে রান্না করার জন্যে প্লাইস মাছ বের করে তাতে লবন হলুদ মাখাচ্ছি।

মেঘ কি জন্যে জানি রান্নাঘরে এসেছিলো, দেখেই বললো, সব মাছ তুমি বাঙলা রাঁধো কেন মা?

আমি বললাম, সব মাছের আমি অন্য রান্না জানি না তাই।

মেঘ বললো, জানো না তো কি হয়েছে? ইউটিউব করে, গুগল করে শিখতে পারো না? এগুলো কি বাংলা মাছ যে বাংলা রাঁধো? বাংলা রাঁধলে আমাকে মাছ খাও, মাছ খাও বলবে না। তুমি জানো বাংলা মাছ আমার ভাল লাগে না।

আমি বললাম, তুমি তো শিখছো বাংলা মাছ খাওয়া।

মেঘ বললো, চিংড়ি, রুপচাঁদা, স্যামন, টুনা, শারদিল, পাঙ্গাশ ফিলেট, পোলাক, পালিং, হারিং আর ইলিশ ছাড়া অন্য বাংলা মাছ মজা নয় কিছু।

এর একটু পরেই কানাডা থেকে মণিকা আন্টি আর তারেক আঙ্কেল ফোন করেছিলো আমাদের। মণিকা যখন এই ঘটনা শুনলো, দারুন একটা যুক্তি দিলো। বললো, মাছ মানেই বাংলা। আমরা মাছে ভাতে বাঙালি, তাই সব মাছই বাংলা খাওয়া যায়। মণিকা তাৎক্ষনিক ভাবে দারুন যুক্তি দিয়ে কথা বলতে পারে। মেঘ অবশ্য চুপচাপ শুনে গেলো, কিছু জবাব না দিয়ে।

খাওয়া দাওয়া হয়ে গেলে পর যথারীতি একটু পড়াশোনা দেখাচ্ছি মেয়েকে। কথায় কথায় চাকরীর কথা আসলো। 

আমি বললাম, আমাকে তোর কাছে রেখে দিস, তুই সারাদিন অফিস করে ফিরে এলে, তোকে রাঁধতে হবে না, আমি রেঁধে তোদের খাওয়াবো। তোর আর তোর বাচ্চাদের জন্যে, রুই মাছ, কেঁচকী মাছ, পাবদা মাছ রাঁধবো।

মেঘের আর্ত চিৎকার, না, কিছুতেই না।

আমি হাসতে হাসতে শেষ গজালটা দিলাম, কিছুতেই না মানে কি? তুই বাংলা হলে তোর বাচ্চারা বাংলা হবে না?




আর আমার বাচ্চা যদি, কেঁচকি, রুই, পাবদা খেতে পারে, দেখিস, তোর বাচ্চাও পারবে।  ম্যা হু না :D

22-12-2016

Sunday, 18 December 2016

কুলে কিক্কার মেঘ

আমাদের দেশে স্কুলে ক্লাশে টীচার বলে, “কথা বলবে না, চুপ করে থাকো”
সে কথাটাই এখানের টীচাররা বলে, “দেখি কে কতক্ষণ ক্লাশে কথা না বলে চুপ থাকতে পারে”? যে সবচেয়ে বেশি সময় থাকতে পারবে তার জন্যে একটা উপহার আছে কিংবা সারপ্রাইজ আছে।


মেঘ যখন ক্লাশ ওয়ানে, তখন ওদের স্কুল থেকে শুরু করলো, যে ক্লাশে দুষ্টুমি করবে না, টিচারের কথা শুনবে, লক্ষী থাকবে, সে সপ্তাহ শেষে, ওদের ক্লাশের সফট টয় “কুলে কিক্কার”কে বাসায় নিয়ে এসে পুরো সপ্তাহান্ত রাখতে পারবে। সবুজ রঙের সে ব্যাঙ আকৃতির “কুলে কিক্কার” কে ঝুলিয়ে গর্বিত মুখে মেঘ যখন ডে কেয়ার থেকে বের হয়ে আসতো, মেঘের সাথে সাথে আমিও অনেক গর্বিত ও আনন্দিত হতাম। তবে শর্ত হলো, পুরো সপ্তাহান্ত মেঘ আর “কুলে কিক্কার” কি করলো সেটা আমাকে কুলে কিক্কারের সাথে পাঠানো ডায়রীতে লিখে পাঠাতে হবে। সোমবারে সকালে যখন ক্লাশ শুরুর আগে সবাই এক সাথে গোল হয়ে বসে যার যার সপ্তাহান্তের গল্প বলবে, তখন টিচার ডায়রী দেখে, জোরে জোরে মেঘ আর কুলে কিক্কারের সপ্তাহান্ত সবাইকে পড়ে শোনাবে। দিস ইজ দ্যা অনার।


প্রথম প্রথম আমারও ভাল লাগতো, লিখে পাঠাতে। এরপর দেখলাম এটা প্রায় একটা নিয়মিত রুটিনে পরিনত হয়ে গেছে। প্রায় প্রতি সপ্তাহের শেষ দিনে মেঘ কে ডে কেয়ারে আনতে যেয়ে, যেই বলতাম, যাও লকার থেকে তোমার জিনিস পত্র আনো, সে তার বানানো নানা খেলনা পাতি,  আঁকা ছবির সাথে সেই সবুজ রঙের কুলে কিক্কার কেও ঝুলিয়ে নিয়ে আসতে লাগলো। আমি বানিয়ে বানিয়ে ডায়রী লিখতে লিখতে ক্লান্ত। রেগে বলতাম, তুই আবার এটা পেয়েছিস! ক্লাশে সবচেয়ে বোকা হলি তুই। সব বাচ্চা দুষ্টুমী করতে পারে, তুই পারিস না? তোর সাহস নেই? মেঘ বুঝতে পারতো না, মা কেনো এতো রেগে যেতো কুলে কিক্কার দেখলে। সে তো গুড করেছে।


আজকে মেঘ ত্রয়োদশ শেষ করে চর্তুদশে পা দিলো। ছোট স্কুলের সেই লক্ষী কুলে কিক্কার সে এখন আর নেই। ভাল দুষ্ট হয়েছে। কথায় কথায় তর্ক, বায়না, কান্না বয়সের সব দোষ গুন বর্তমান। যদিও বাসায় এটা অনেক প্রবল, বাইরে সে অনেকটাই আগের কুলে কিক্কার রয়ে গেছে। দিদু, খালামনি, বান্ধবী, টিচারদের কাছে বড়ই আদুরে তিনি।


হ্যাপি বার্থ ডে, আমার কুলে কিক্কার। বাসায় বড় বড় চোখে জল এনে, মাকে যতই বলো, “আমাকে তুমি ভালবাস না, কিছু তুমি আমাকে আমার ইচ্ছে মত করতে দাও না।“  আমি জানি তুমি জানো, মায়ের জীবনের শ্রেষ্ঠ অর্জন তুমি। চির আয়ুষ্মতী হও। লাভিউ – লাভিউ লট।



Friday, 2 December 2016

গ্রন্থালোচনাঃ “জলদস্যুর কবলে জাহান মনি”

বাস্তব অভিজ্ঞতা নিয়ে লেখা বই, মুভি আমাকে বরাবরই খুব টানে। একটানে পড়ে শেষ করলাম জলদস্যুদের কবলে পরা বাংলাদেশের জাহাজ “জাহান মনি” র চীফ ইঞ্জিনিয়ার মতিউল মাওলা’র একশ পাঁচ দিনের বিভীষিকাময় অভিজ্ঞতা নিয়ে লেখা “জলদস্যুর কবলে জাহান মনি” – খুব সাদামাটা ভাষায় লেখা হলেও বিষয়ের গুনেই বইটি হাত থেকে নামাতে পারি নি আর বইটিও মাত্র চৌষট্টি পৃষ্ঠার।

এর আগে এ বিষয়ে ওপর একটা মুভি দেখেছিলাম ক্যাপ্টেন ফিলিপস। টম হ্যাঙ্কস অসাধারণ অভিনয় করেছিলেন ঐ সিনেমাটিতে। একাডেমি এওয়ার্ড ফর বেস্ট পিকচার নমিনেশান পেয়েছিলো সিনেমাটি। সেখানেও সোমালিয়ান দস্যুদের কবলে একটি এমেরিকান জাহাজের আক্রমনের ঘটনাই ছিলো। তবে তারা জাহাজটিকে ছেড়ে দিয়ে শুধু ক্যাপ্টেনকে নিয়ে যায় মুক্তিপনের জন্যে। আর এখানে পুরো জাহাজটিকে সোমালিয়া নিয়ে যাওয়া হয় এর ক্যাপ্টেন আর ক্রু সব সহ। আর এমেরিকারন সরকার বা মালিক পক্ষ তাদের নাগরিক বা কর্মচারীদের জন্যে যে কেয়ার করবেন সেটা তো বাংলাদেশ সরকার বা বাংলাদেশী মালিক পক্ষ থেকে আশা করা যায় না।

https://www.youtube.com/watch?v=AAZ0Su_iqYA

শেষে বাংলাদেশ সরকার আর জাহাজ মালিক কর্তৃপক্ষই তাদের উদ্ধার করেন। সে কারণেই হয়ত মতিউল মাওলা যতটা কম নেতিবাচক পেরেছেন তাদের সম্পর্কে ততটাই বলেছেন। নেহাত যতটুকু না বললেই নয়। আন্তরিক ধন্যবাদ জানিয়েছেন এটিএন এর সাংবাদিক মুন্নী সাহাকে। এও জানিয়েছেন তাদের দুর্ভোগ নিয়ে রিপোর্ট করা নিয়ে মুন্নী সাহার ওপর বাংলাদেশ সরকার আর জাহাজ মালিক পক্ষের চাপ ছিলো। জন সম্মুখে ভাবমূর্তি যেনো ঠিক থাকে।

বইটি থেকে জানলাম, আরাকানের মগ ও পর্তুগিজ জলদস্যুর আক্রমনে একদিন উপকূলীয় এলাকা বিরান হয়ে গেছিলো। তাদের হটিয়ে, আগা বাকের খাঁ বসতি স্থাপন করেন বাকেরগঞ্জে। বাকের খাঁ ও তার স্ত্রী খনি বেগমের নামে এখন বাকরখানি রুটি প্রসিদ্ধ।

আরো জানলাম, ওমানের সালালাহ বন্দরে যেখানে জাহাজ জাহান মনি সোমালিয়া থেকে এসে নোঙর করে তার কাছেই নাকি সে জায়গাটা যেখানে ইউনুছ নবীকে মাছ তার পেট থেকে লাউ গাছের তলায় রেখে গিয়েছিলো, সেখানে তিনি ও তার স্ত্রী গিয়েছিলেন জাহান মনির মালিকের স্ত্রীর সাথে।

মতিউল মাওলা প্রচন্ড রকম ধার্মিক। পুরো বইতেই এই বিপদের দিনে তিনি বা পুরো জাহাজের সবাই কীভাবে আল্লাহর কাছে দিনরাত প্রার্থণা করেছেন তার বর্ননা আছে। সারা দিনরাত বন্দুকের নলের সামনে থাকলে সেই মানসিক অবস্থায় এটা খুব স্বাভাবিক বটেই। তবুও সে আমলে ওমানে লাউ গাছ ছিলো কিংবা এখনো সেখানে লাউ গাছ আছে, সে নিয়ে সংশয় প্রকাশ করছি। তবে সোমালিয়ানরা মুসলমান বলে তাদের ওপর কম অত্যাচার করেছে সেটা তিনি বারবার উল্লেখ করেছেন। ধর্ম কোথায় না কাজ করে! যেমন রাজনীতিতে ঠিক তেমন ডাকাতিতেও।

তবে এই জলদস্যুতা নিয়ে আন্তর্জাতিকভাবে যে কিছু সিন্ডিকেট আর ব্যবসা জমে গেছে সেটার ওপর তিনি অল্প সল্প আলোকপাত করেছেন। কোরিয়া, সিঙ্গাপুর, এমেরিকার, মাফিয়া- গড ফাদার-অনেকেই এতে জড়িত। জলদস্যুদের থেকে নিরাপত্তা দিতে কেউ কেউ আলাদা কোস্ট গার্ড সাপ্লাই করবেন পয়সার বিনিময়ে, কোন কোন ব্যাঙ্ক নগদ ডলার দেবেন, কেউ কেউ তেল, খাবার পানি সাপ্লাই করবেন ইত্যাদি ইত্যাদি। দিনের শেষে সকলই পয়সার খেলা, সকলই ব্যবসা। পেশাদার লেখক তিনি নন, খুব গুছিয়ে বিস্তারিত লিখতে তিনি পারেন নি, হয়ত সে উদ্দেশ্যও তার ছিল না। তার জীবনের সবচেয়ে ভয়ানক অংশটিকে সকলের সামনে তুলে ধরা হয়ত তার উদ্দেশ্য ছিলো। {এই ঘটনার ভয়াবহ একটা পরিনাম তার পরিবার ভোগ করেছে, তার স্ত্রী মাঞ্চু তার সাথে সে সময় জাহাজে ছিলেন, এবং এই যাত্রা থেকে ফিরে আসার কিছুদিন পরেই তার মৃত্যু হয়। অনেকেই মনে করেন, একশ পাঁচ দিনের এই ভয়াবহ টেনশান তার অকাল মৃত্যুর কারণ।} এই অংশ টুকু বই থেকে নয় ব্যক্তিগত সোর্স থেকে পাওয়া।

এই বছরই অক্ষয় কুমার অভিনীত একটি দূদার্ন্ত সিনেমা মুক্তি পায়,  ইরাকের কুয়েত আক্রমনের সময় সেখানে আটকে পরা ভারতীয়দের উদ্ধার করার সত্যি ঘটনা অবলম্বনে “এয়ারলিফট”। অনেক বাংলাদেশিও সে সময় সেখানে আটকে ছিলেন, পরে তাদেরকে সরকার কি ভাবে উদ্ধার করলো, তারা কিভাবে সেখানে সময় পার করলেন, সে সম্পর্কে বাংলাদেশে কেউ কিছু লিখেছেন কি না, জানতে ইচ্ছে করে।

বন্ধু সম দীপন একবার তার ব্যবসা নিয়ে হতাশা প্রকাশ করে বলেছিলো, বই বিক্রি এত কম। আমি তাকে বলেছিলাম, তার প্রকাশনার বইয়ের লিস্ট দিতে আর সাজেস্ট করতে পড়ার মত কি কি বই আছে। সে আমাকে বলেছিল, অনেক দেশ বিদেশ বেড়াও তুমি, এ বইটা পড়ে দেখতে পারো, তোমার ভাল লাগতে পারে।

বইটা আসলেই ভাল লেগেছে দীপন। অনেক দূরে যেখানেই থাকো, শুভেচ্ছা তোমাকে।
জাগৃতি প্রকাশনী

০২/১২/২০১৬



Sunday, 27 November 2016

ডাচ এডুকেশান - ১

ডাচ এডুকেশান সিস্টেম এর ভক্ত আমি অনেক দিন থেকেই। সামান্য কিছুটা পড়াশোনা নিজে করেছি। তারপর মেয়ে যখন এখানে স্কুলিং শুরু করলো, গভীর ভাবে তাদের স্কুলিং সাথে আমাদের স্কুলিং এর পার্থক্য দেখেছি আর দীর্ঘ নিঃশ্বাস ফেলেছি। জ্বর, শরীর খারাপ কিছুতেই বাচ্চাদের বাসায় রাখা যায় না, স্কুলে যেতে তারা এতোটাই পাগল, আমি কখনো জানতামই না স্কুল এতো আনন্দের জায়গা। এ সব দেখে ভেবেছি অনেক কিন্তু জানি আমাদের ঘা এমন জায়গায় পৌঁছে গেছে কিছুতেই কিছু আর হয়ত হবার নয়, তাই নীরব থেকেছি।

মেয়ে এখন হাই স্কুলে, পড়াশোনা’র প্রকৃতি পরিবর্তন হয়েছে স্বাভাবিকভাবে এর সাথে পরিবর্তন হচ্ছে মনো জগতও। বছরে কয়েকবার করে বাবা-মা দের জন্যে “তথ্যমূলক সন্ধ্যের” আয়োজন করে স্কুল কর্তৃপক্ষ। এই বয়সের ছেলে মেয়ের মনো জগতে যে পরিবর্তন ঘটে, তাদের আচার আচরনে পরিবর্তন আসে, বাবা মা কি জানেন সেগুলো কী করে মোকাবিলা করতে হবে? শুধু পড়াশোনাই তো জীবন নয় এর বাইরেও তো তাদের বড় একটা জীবন আছে। নানা দিকে তাদের পদচারনা আছে, ভুল আছে, শুদ্ধ আছে, যার প্রভাব তাদের পড়াশোনা আর ভবিষ্যত জীবনের ওপপরতে পারে।

আমি এদের শিক্ষা ব্যবস্থা অবাক হয়ে দেখি। বাবা মা’কে কীভাবে প্রস্তূত করে সন্তানদের পরিবর্তিত মানসিক অবস্থা, বয়োসন্ধি, তাদের ভাল লাগা – মন্দ লাগা, তাদের সামাজিক অবস্থাকে সম্মান করে, তাদেরকে গুরুত্ব দিয়ে তাদেরকে সঠিক পথে রাখার জন্যে। কয়েকদিন আগে ছিলো এমনই একটি সন্ধ্যে “সোশ্যাল মিডিয়াতে তোমার সন্তান”। বাবা মা’কে বিশদ ভাবে জানালো হলো এই বয়সের বাচ্চারা সোশ্যাল মিডিয়াতে অনেক ব্যস্ত থাকে এবং তারা কী কী করে। কী কী সমস্যায় তারা পরতে পারে। বাবা মায়েরা তাদের সন্তানদের কীভাবে সেখানে সাহায্য করতে পারে।

স্কুল থেকে থিয়েটার গ্রুপ ভাড়া করা হয়েছিলো, তারা প্রতিদিনের জীবনে বাবা মায়ের সাথে সন্তানদের মত বিরোধের বিভিন্ন পরিস্থিতি অভিনয়ের মাধ্যমে তৈরী করে তারপর এক এক বার এক এক জন বাবা মা’কে ডাকছিলো, তুমি এই পরিস্থিতি তে তোমার সন্তান কে কি বলবে? একজন বাবা মায়ের প্রতিক্রিয়ার পর অন্যদের জিজ্ঞেস করা হচ্ছিলো, তোমরা কি এদের সাথে একমত? অন্য কেউ যখন বলছিলো, না, আমি হলে এটা বলতাম, তখন তাকে স্টেজে ডাকা হচ্ছিলো, ঠিকাছে তুমি এটা বলো, দেখি তোমার সন্তান কীভাবে প্রতিক্রিয়া করে? উপস্থিত কলাকুশলীরা দর্শক সারি থেকে উঠে আসা বাবা মায়ের মন্তব্যের প্রেক্ষিতে বিভিন্ন বাস্তবধর্মী প্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছিলো যা সাধারণত প্রায় প্রতিটি সংসারে প্রতি দিন ঘটে থাকে। কোন কথার বা আচরনের কী প্রতিক্রিয়া হতে পারে সন্তানের ওপর তার এমন হাতে কলমে শিক্ষা, না দেখলে কখনো ভাবতেই পারতাম না।


কোন দেশের সরকার তার শিক্ষা ব্যবস্থা, তার ভবিষ্যত নাগরিকদের প্রতি কী ধরনের যত্নবান হতে পারে, তার জন্যে কি কি ধরনের অভিনব ব্যবস্থা নিতে পারে তা নিজে অংশ গ্রহন না করলে হয়ত অনুধাবনই করতে পারতাম না। আমাদের দেশে কিছু ফুল নিজ গুনে, নিজ দায়িত্ব ফোটে। কিন্তু এখানে গুনে গুনে সার দিয়ে, পানি দিয়ে অনেক যত্ন করে ফুল ফোটানো হয়। কত কি এদের থেকে শেখার আছে, জানার আছে। সভ্যতা, ভদ্রতা কিংবা উন্নত রাষ্ট্র আর উন্নত জীবন ধারন কী টাকা পয়সা থাকলেই সম্ভব হয়? টাকাটা কোন খাতে খরচ করলে কি পাবো, কি জানবো সেটাও তো আমাদের জানতে হবে।

২৭-১১-২০১৬