Wednesday, 15 November 2017

সম্পর্ক - প্রেম?

কিছু জানা আর অজানায়,
হয়ত চেনা নাকি অচেনায়,
কিছু পছন্দ কিংবা অপছন্দের,
কখনও খানিকটা ছাড় দিয়ে,
মাঝে সাঝে জেদ মেনে নিয়ে ,
অপ্রীতিকর স্মৃতি সরিয়ে দিয়ে
কবিতা, গানে, আদরে, অভিমানে  
বহু ক্রোশ দূর হেঁটে যাওয়া,
বেহিসেবী পাওয়া না পাওয়া,
ভুলে চাওয়া না চাওয়া
ঋতু যায় ঋতু আসে  
পায়ে পায়ে এগিয়ে যাওয়া।  


 ১৫/১১/২০১৭

Tuesday, 14 November 2017

স্রোতের বিপরীতে দাঁড়িয়ে থাকা



সেদিন একটা আড্ডায় আমির খানের নতুন মুভি, “সিক্রেট সুপারস্টার” নিয়ে কথা হচ্ছিল। সবাই খুব প্রশংসা করছিলো, আমির খানের সিনেমা বলে কথা। এই ভাল – সেই ভাল ইত্যাদি। আমি অনেকক্ষণ চুপচাপ থেকে তারপর বলেই ফেললাম, আমার কাছে খুব ফরম্যাটেড ফিল্ম মনে হয়েছে, তেমন আলাদা কিছু লাগে নি। ইরানীয়ান মুভি গুলোতে সাধারণতঃ এই ঘটনা গুলো খুব অন্যরকম ভাবে চিত্রায়ণ করা হয়, সিনেমা মনেই হয় না, মনে হয়, পাশের বাড়িতেই কাউকে দেখছি। আ সেপারেশান, দ্যা কালার ওফ প্যারাডাইস, এম ফো মাদার, আ মোমেন্ট অফ ইনোসেন্স, হেয়ার উইথাউট মি সিনেমা গুলো দেখলে কখনোই মনে হয় না সিনেমা দেখছি। সিনেমা সুলভ কোন ব্যাপারই থাকে না, থাকে কিছু হৃদয় নিংড়ানো কষ্টকর বাস্তবতা। যারা চুপচাপ ছিলো তারাও তখন বলেই ফেললো, হ্যাঁ, “সিক্রেট সুপারস্টার” তাদেরকেও হতাশ করেছে। তারা কিছু তামিল, মারাঠি সিনেমার কথা বললো, যেগুলোতে আরও গভীরতা ছিলো কাহিনী’র। কাহিনীর যে গভীরতা ছিলো, হতে পারত মা ও সন্তানদের সংগ্রামের একটি বাস্তবচিত্র সেদিক থেকে “সিক্রেট সুপারস্টার” একটি সম্ভাবনার অপমৃত্যু।

এক বাসায় হালিম খাচ্ছিলাম। “আসল হালিম”, আমার গলা দিয়ে কিছুতেই নামছিলো না কিন্তু অন্যরা বাটি ভরে ভরে খেতে খেতে প্রচুর প্রশংসা করছিলো। আমি বাটি আর চামচ নেড়ে চেড়ে যাচ্ছি, গৃহকর্ত্রী বেশ কয়েকবার বলে গেলো, খেয়ে নাও, জীবনে ভুলবে না, মামা হালিম খাওয়া জেনারেশান, আসল হালিম তো কি জিনিস জানো না। কিন্তু ক্রমাগত আমার বাটি চামচ নাড়াচাড়া দেখে পাশের জন বললো, কি রে, খেতে পারছিস না। আমি ভয়ে কোন “টু” শব্দ না করে, মাথা নেড়ে জানান দিলাম, না পারছি না। পাশের জন উঠে আমার বাটি নিয়ে সিঙ্কে ঢেলে দিয়ে এলো, সাথে নিজের বাটিও ঢেলে দিয়ে এলো। এসে বসে তার পাশের জনকে চোখ ট্যারিয়ে জিজ্ঞেস করলো, খেলি পুরোটা? পাশের জন নিপাট ভদ্র, প্রথমে বুঝতে পারে নি, বেশ গদ গদ বলতে থাকলো, তখন আবার সে জিজ্ঞ্রেস করলো, পুরোটাই খেলি, খেতে পারলি? বোধহয় এন্টেনায় কিছু ধরা পরলো, আমতা আমতা শুরু করলো, কি করবো? ভদ্রতা, দিয়েছে, খেতে তো হবেই ইত্যাদি ইত্যাদি।

কিছু দিন আগেই ফরিদ কবির ভাই তার আর ঝর্ণা আপা’র একটা ছবি পোস্ট করলেন তাজমহলের সামনে সাথে তার স্মৃতিকথা। স্মৃতিকথা পড়তে অপূর্ব লেগেছে, সবাই তার প্রশংসা করছে, সাথে তাজমহলেরও। আমি শেষ পর্যন্ত বলেই ফেললাম, “তাজ” আমাকে টানেনি। জীবনের বড় একটি আশাভঙ্গ’তার নাম হল “তাজমহল”। মসজিদ আকৃতির এই ইমারতটি দেখে আমি হতাশ হয়েছি। আমার অন্য কিছু আশা ছিলো। বরং আগ্রা ফোর্ট, যেখানে আওরঙ্গজেব, সম্রাট শাহজাহান আর তার কন্যা জাহানারা’কে আটকে রেখেছিলেন সেটি আমার অনেক মন ছুঁয়েছে, যমুনার তীর ঘেঁসে, এখনো কি বিষন্ন, যেনো পুরো নদী আর প্রাসাদে এখনও তাদের কান্না মিশে আছে।  প্রথমে আমাকে বেশ কয়েকজন বললো, “তাজমহল” মানে শুধু পাথর আর ইমারত নয়, চর্ম চক্ষু দিয়ে দেখলে তো তাই দেখবো, মনের চোখ দিয়ে যদি দেখি, ভাবি, উপলব্ধি করি তাহলে এর আসল সৌর্ন্দয বুঝতে পারবো। আমি সারেন্ডার করে বললাম, অন্য কোন জনমে হয়ত, এবার আর হলো না। অবাক হয়ে দেখলাম তারপর, নেহাত মন্দ নয়, আরও অনেক বন্ধু নিজ থেকে এসেই বললো, তারাও চর্ম চক্ষুতে “তাজমহল” দেখেছে এবং হতাশ হয়েছে।

মা হয়েও আমার এই অভিজ্ঞতা হয়েছে। সিনেমায় দেখেছি, আজ বাচ্চা হলো, কাল শর্মিলা ঠাকুর, বাচ্চার কান্না শুনে আকাশ পাতাল এক করে ফেললো। নিজের বেলায় তেমন কিছু হচ্ছে না দেখে নিজের মনুষ্যত্ব বোধ নিয়ে খুব হীনমন্যতায় ছিলাম। এর বেশ অনেকদিন পর বান্ধবী’রা আমাদের দেখতে এলে, একদিন কথায় কথায় সাহস করে বলেই ফেললাম, দেখি আস্তে আস্তে অন্যরাও তাদের মনের কথা বলছে। মা হওয়া, একটি অন গোয়িং প্রসেস। মা আর বাচ্চা যত সময় একসাথে কাটাবে, যত সুখ দুঃখের স্মৃতি এক সাথে জমা হবে, বাচ্চার কান্না, বাচ্চার হাসি, বাচ্চার খেলা এ সবই মা’কে বাচ্চার কাছে টেনে আনে আর মায়ের এই নিঃশর্ত কাছে আসা টেনে আনে বাচ্চাকে তার মায়ের কাছে।

সত্যি কথা মাঝে মাঝে বলে ফেলার রিস্ক অনেক কিন্তু একটা গেইন থাকে, পোশাকী গল্পের বাইরে কিছু আটপোড়ে সত্যি গল্প শুনতে পাওয়া যায় যেখানে রঙচঙ থাকে না। নিজেকে যাচাই করা যায়, ঝালিয়েও নিয়ে যায়। মাঝে মাঝে সত্যি উচ্চারনে এই সাহসটা আমি পেয়েছিলাম, খুব ছোট একটা বাচ্চার থেকে।


একবার এক বাসায় মিলাদ হচ্ছিল, হুজুর ইনিয়ে বিনিয়ে কথা বলেই যাচ্ছে তো বলেই যাচ্ছে, কিছুতেই শেষ হচ্ছে না। বড়রা কেউ বসে আছে তো কেউ এই ঐ উছিলায় এদিক ওদিক করছে, মহিলা’রা মাঝে সাঝে টুকটাক কথা সেরে নিচ্ছে, ছোট’রা এই অবসরে একটু দুষ্টুমি করছে। মিলাদ শেষ হওয়ার পর বাচ্চাটির মা, বাচ্চাটিকে খুব বলছিলো, হুজুর ভাল ভাল সব কথা বলছিলো, তুমি শুনছিলে না, দুষ্টুমি করেই যাচ্ছিলে, ঠিক করছিলে কাজটা? বাচ্চাটা এমনিতে লক্ষী, বাবা মায়ের কথা শোনে, পড়াশোনায়ও ভাল। মায়ের কথা শুনতে শুনতে এক পর্যায়ে বলে উঠলো, আমি জানি হুজুর ভাল ভাল কথা বলছিলো, কিন্তু ভাল কথা শুনতে বেশিক্ষণ ভাল লাগে না আম্মু।  

এই সাধারণ কিন্তু সহজ আর সত্য কথাটি উচ্চারন করতে একটা বাচ্চা মেয়ে’র অনেকটাই দৃঢ়তা আর আত্মবিশ্বাসের প্রয়োজন হয়। সমাজের বেশি’র ভাগ মানুষই সুযোগ সন্ধানী। সুবিধা যেখানে পাবে সেখানেই গলা মিলিয়ে ফেলে। সেখানে খুব ঠান্ডা, বিনম্র, আস্তে কিন্তু দৃঢ় গলা’র এই কথা গুলো কিন্তু কিছুতেই ফেলনা নয়। কারো না কারো কানে তো পৌঁছবে, সেটাই সার্থকতা। আওয়াজটা খুব অল্প থাকে কিন্তু থাকে। হয়ত ঝাঁকের কই  হয়ে ক্ষণিক সুবিধে আনন্দ নিয়ে হারিয়ে যায় কিন্তু মৃদ্যু আওয়াজটা থেকে যায়।

১৫/১১/২০১৭


Thursday, 9 November 2017

ডাচ এজুকেশান সিস্টেম: গাইডিং টু ফিউচার

ক্লাশ এইটে ওঠার পর সব বাচ্চাদেরকে কে কোন দিকে পড়তে চায় সেটা নিয়ে ভাবতে বলে। ছয় মাস সময় পায় তারা সেটা নিয়ে চিন্তা ভাবনা করার। কার কোন দিকে আগ্রহ, কার কি পড়তে ভাল লাগে এগুলো নিয়ে স্কুলে আলোচনা হয়। স্কুল আর ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে আলোচনা হয় এবং স্কুল কর্তৃপক্ষ বাবা মায়েদের ডাকেন আলোচনা’র জন্যে। শুধু ভাল লাগলেই হবে না, সেটা পড়তে পারার মত যোগ্যতা সে রাখে কী না সেটাও বিবেচনায় থাকে। যোগ্যতা শুধু নম্বর আর পরীক্ষার ফলাফলের ওপরই নির্ভর করে না, বাচ্চার মানসিক অবস্থা, পারিপার্শ্বিক অবস্থা সেটাকে সমর্থন করে কি না সেটাও এখানে একটা গুরুত্বপূর্ন বিবেচনার বিষয়।

হয়তো দেখা গেলো কোন বাচ্চা খুব বায়োলজি পড়তে আগ্রহী, আগ্রহ নিয়ে সে পড়াশোনা করছে, ফলাফলও ভালো। ল্যাবে তাকে বলা হলো, কোনো একটা মাছ বা প্রাণী’র ব্যবচ্ছেদ করে দেখাতে, রক্ত দেখে সে অজ্ঞান হয়ে গেলো। কিংবা মানব শরীরের কঙ্কাল দেখে খুব ভয় পেয়ে গেলো। বায়োলজি পড়ার স্বপ্ন দেখার রোমান্টিসিজম এর সময় কোনো বাচ্চারই পারিপার্শ্বিক এই ব্যাপার গুলো মাথায় থাকে না।
শুধু আলোচনার মাধ্যমে দিক নির্দেশনা দিয়ে এখানেই স্কুল কর্তৃপক্ষ কিংবা রাষ্ট্র তার দায়িত্ব শেষ করে না। বিভিন্ন দেশি-বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয়, বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ, পলিটেকনিক কলেজ ও অন্যান্য উচ্চ শিক্ষা ও পেশাদারী প্রতিষ্ঠানের সম্বনয়ে আয়োজিত হয় “শিক্ষা মেলা”। শিক্ষা মেলায় বিনা মূল্যে প্রবেশ করা যায়। তবে আগে থেকে ই মেইলের মাধ্যমে তার প্রবেশ কার্ডটি সংগ্রহ করতে হয়। ইমেইলে জানাতে হয়, সে কি ছাত্র হিসেবে আসছে না কি ছাত্রের বাবা মা হিসেবে আসছে কিংবা সপরিবারে আসছে।

পুরো মেলাটি যেহেতু অনেক বড় আর সব ব্যাপারে সবার আগ্রহ না’ও থাকতে পারে তাই শিক্ষামেলায় কম্পিউটার দেয়া আছে, প্রত্যেকে নিজের পছন্দ মতো তার নিজের “ওয়াকিং রুট” বানিয়ে, ম্যাপ প্রিন্ট আউট নিয়ে সেদিকে হাঁটতে পারে। কেউ পছন্দের বিষয় ভিত্তিক রুট বানাতে পারে, কেউ পছন্দের বিশ্ববিদ্যালয় ভিত্তিক রুট বানাতে পারে, কেউবা দেশ, ভাষা ইত্যাদি’র ওপর পছন্দ করে নিজের নিজের কাস্টমাইজ রুট নিয়ে মেলা হেঁটে ঘুরে দেখতে পারে।
মেলায় কাজ করে প্রধানত সব ছাত্র ছাত্রী’রা। যে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যে ছাত্র ছাত্রী যে বিষয়ের ওপর পড়ছে বা হাতে কলমে কাজ করছে তারা সে বিষয়েই ছোটদের কৌতুহলের উত্তর দেয়। যারা এখনও মনস্থির করে উঠতে পারে নি, কি পড়বে, কোনটা পড়বে তাদের আগ্রহী করার চেষ্টা করে। ইমেল এড্রেস রাখে, বাসার এড্রেস রাখে, মেলায় রাখা ফোল্ডারের বাইরেও অতিরিক্ত আরো তথ্য পাঠায়।

ধরা যাক, কেউ একজন বায়োলজি পড়তে আগ্রহী, সে বায়োলজি’র কোন শাখায় কাজ করতে চায়? বায়ো টেকনোলজি, বায়ো মেডিসিন নাকি বোটানী। একজন মানুষের স্বভাব খুব ঘর কুনো, সে বাইরে বের হতে চায় না, তার জন্যে কৃষি উন্নয়ন পড়ার কোনো মানে নেই। মাঠে, ঘাটে, জঙ্গলে বেরিয়ে তাকে পড়তেও হবে কাজও করতে হবে। ফুল, গাছ, পাখি, লতা, পাতা, প্রজাপতি, ফড়িং, গরু, ঘোড়া এ সমস্ত নিয়েই তাকে কাজ করতে হবে। যে এগুলো ভালোবাসবে না, সে এই নিয়ে কাজ করার কোনো আগ্রহ পাবে না। আবার কেউ যদি খুব বর্হিমুখী স্বভাবের হয় কিন্তু বায়োটেকনোলজি পড়তে চায় সেটাও সমস্যা। তাকে অনেক বেশি সময় ল্যাবে থাকতে হবে, একাকী কাজ করতে হবে, নির্জনতা প্রিয় না হলে এই কাজে সে আগ্রহ পাবে না। এ সমস্তই শিক্ষা মেলায় বিস্তারিত ভাবে প্রায় একজন একজন করে সমস্ত ছাত্র ছাত্রীদের কে বলা হয়। আসলে তৈরি হতে বলা হয়, নিজেকে চেনো-জানো, কি চাও, কেনো চাও, আসলেই চাও তো? ভুল করছোনা তো? যা সব সিনেমায় বা টিভিতে দেখে ভাবছো বাস্তব ও তাই তো?
যারা একদমই জানে না, কি পড়তে চায়, কী সে তার আগ্রহ, ভবিষ্যতে কি করবে কিংবা কিসে আছে সুনিশ্চিত সেই ভবিষ্যত তাদের জন্যে আলাদা করে প্রতি আধ ঘন্টা অন্তর অন্তর তথ্যমূলক ভিডিও চিত্র দেখানো হয়। ভিডিও দেখার পরও যারা দ্বিধায় ভোগে তারা আবার আলাদা একটা হলে তথ্যপ্রদান মূলক সেমিনারে যোগ দিতে পারে। এর পরও কেউ কারো সাথে কথা বলতে চাইলে, উপদেশ নিতে চাইলে, শিক্ষা বিশেষজ্ঞরা সেখানে আছে, তারা বিনামূল্যে তাদের সাথে কথা বলে, আলোচনা করে। এই সার্বজনীন শিক্ষা মেলা ছাড়াও প্রায় প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আলাদা আলাদা করে নিজেদের প্রতিষ্ঠানে এই “তথ্য মেলা”র আয়োজন করে থাকে। তবে সাধারণতঃ দেখা যায়, বিষয় নির্বাচন করার পর, সেই বিষয়টি কোন কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ানো হয়, সেটি’র ওপর নির্ভর করে ছাত্র ছাত্রী’রা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের তথ্য মেলায় যোগ দেয়।

এই পুরো কার্যক্রমটিই হয় রাষ্ট্রের স্বার্থে যদিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলো এতে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে। যত ছাত্র ছাত্রী যোগাড় করতে পারবে ততই রাষ্ট্রীয় অনুদান পাবে। যুগোপোযোগী অত্যাধুনিক শিক্ষা কার্যক্রম, ভালো ফলাফল ও যথেষ্ঠ ছাত্র ছাত্রী, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোর রাষ্ট্রীয় অনুদান পাওয়ার অন্যতম শর্ত এখানে। নইলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সনদও বাতিল হয়ে যেতে পারে। এই কার্যক্রমটিকে নাগরিক স্বার্থেও বিবেচনা করা যেতে পারে। বাচ্চারা সঠিক জায়গায় নিজেদের মেধা, আগ্রহ, সামর্থ্য দিতে না পারলে সেটা তাদের ব্যক্তিগত ক্ষতির সাথে রাষ্ট্রেরও ক্ষতি। অসুখী, অদক্ষ, অনাগ্রহী নাগরিকদের নিয়ে তো আর কোনো সুখী সমৃদ্ধশালী রাষ্ট্র গড়ে উঠতে পারে না।
যদিও এত কিছুর পরও বেশীর ভাগ সময়ই শেষ রক্ষা হয় না। এখানের বাচ্চা’রা মানসিক চাপ নিতে পারে না। পড়াশোনার চাপে উচ্চ শিক্ষার প্রতি আগ্রহ হারিয়ে ফেলে। জরিপে দেখা যায়, পঞ্চাশ শতাংশ ক্ষেত্র বিশেষে আরো কম ছাত্র ছাত্রী তাদের স্নাতক বা স্নাতোকত্তর পড়াশোনা পুরোপুরি শেষ করে। কুড়ি ভাগের মতো ছাত্র ছাত্রী, কর্ম জীবনে প্রবেশ করার পর আবার পড়াশোনায় ফিরে এসে, কাজের পাশাপাশি স্নাতক শেষ করে। যার কারণে “গবেষনা ও উন্নয়ন” বিভাগে বিরাট শূণ্যতা বিরাজ করে যেটা পূরণ করে বিদেশীরা। এই জায়গা টুকুতে দেখা যায় প্রচুর বিদেশী কাজ করে যাচ্ছে। আজকাল প্রচুর বাংলাদেশী মেধাবী’রাও নেদারল্যান্ডসের “গবেষনা ও উন্নয়ন” বিভাগে কাজ করছে।
 http://nari.news/post/dutch-education

http://www.shomoynews.com/2017/11/09/%E0%A6%A1%E0%A6%BE%E0%A6%9A-%E0%A6%8F%E0%A6%9C%E0%A7%81%E0%A6%95%E0%A7%87%E0%A6%B6%E0%A6%BE%E0%A6%A8-%E0%A6%B8%E0%A6%BF%E0%A6%B8%E0%A7%8D%E0%A6%9F%E0%A7%87%E0%A6%AE%E0%A6%83-%E0%A6%97%E0%A6%BE/#sthash.KuVVV6Vx.GeBBdrkV.gbpl


বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী মুসলিম ক্রিকেট দল

যদিও “মাশরাফি-শুভাশীস” প্রসঙ্গে কেউ আমার মতামত চায় নাই তথাপি একজন একনিষ্ঠ, কর্মঠ, দায়িত্বশীল, নিষ্ঠাবান, নিবেদিত প্রাণ ফেসবুকার হিসেবে আমি এই “জাতীয় ইস্যু”তে আমার দায়িত্ব এড়িয়ে যেতে পারি না  

বাংলাদেশ দুটি ক্রিকেট দল থাকা দরকার ঃ ক) বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী মুসলিম ক্রিকেট দল খ) বাংলাদেশ অ-জাতীয়তাবাদী হিন্দু-খ্রীস্টান-বৌদ্ধ-আদিবাসী ক্রিকেট দল (নন মুসলিম’রা নিজেদের যতই বাংলাদেশি বলে ভাবুক না কেন, মুমিন’রা তা যেহেতু মানতে নারাজ, তাই “গায়ে মানে না আপনি মোড়ল” সাজা’র কোন দরকার নেই, অ-জাতীয়তাবাদীই তারা।

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী মুসলিম ক্রিকেট দলঃ বলা বাহুল্য, তারা ক্রিকেট সমাজের দন্ডমুন্ডের কর্তা থাকবে। তারা গালি দিবে, তারা ক্ষমা চেয়ে ভিডিও আপ করবে, তারা মহান। তারা খেলার মাঠের উত্তেজনা, স্ট্রেস, অভিব্যক্তি, আনন্দ সব কিছু করতেই পারমিটেড। এমনকি সুবিধা বুঝলে ম্যাচ ফিক্সিং ও।

বাংলাদেশ অ-জাতীয়তাবাদী হিন্দু-খ্রীস্টান-বৌদ্ধ-আদিবাসী ক্রিকেট দলঃ তোমরা যে বাপু জন্মের পর থেকে হাড্ডি আস্ত রেখে স্কুল-কলেজ পাড়ি দিতে পেরেছো এটাই বেশি। আবার ক্রিকেট কিসের, শুনি? ক্রিকেট খেলায় যে তোমাদেরকে নেয়, সেটাই তোমাদের চৌদ্দ পুরুষের ভাগ্য। মাঠে নিজের উত্তেজনা, স্ট্রেস, রাগ, কষ্ট, কান্না সব চেপে রেখো। নইলে বাগে পেলে কুপিয়ে ভিটেয় ঘু ঘু চড়িয়ে দেবে বাছারা। যতই জান দিয়ে “বাংলাদেশে”র হয়ে খেলো না কেন, বাংলাদেশ তোমাদের না, এ দেশ শুধু মুমিনদের। মুমিন’রা ক্রিকেট ম্যাচ ফিক্স করেও এত গালি খায় না যত তোমরা কোন খেলায় একটা ক্যাচ মিস করে খাও।

খেলার মাঠে খেলোয়ারদের মধ্যে মারামারি, হাতাহাতি, উত্তেজনা চিরন্তন ব্যাপার। বিশ্বকাপ ফুটবল, ক্রিকেট, অলিম্পিক কোথায় না থাকে সে সব?  হাজার হাজার ক্যামেরার সামনে মা-বোন তুলে গালি, অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি কি না হয়? কিন্তু ধর্মের ভিত্তিতে গালাগালি শুধু বাংলাদেশেই সম্ভব।


তাই বলি, শুধু ক্রিকেট কেন? সর্বক্ষেত্রেই এই বিভাজন অফিসিয়ালি ঘোষনা করে মেনে চলা হোক।

http://seralekha.com/news/-%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%82%E0%A6%B2%E0%A6%BE%E0%A6%A6%E0%A7%87%E0%A6%B6-%E0%A6%9C%E0%A6%BE%E0%A6%A4%E0%A7%80%E0%A7%9F%E0%A6%A4%E0%A6%BE%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%A6%E0%A7%80-%E0%A6%AE%E0%A7%81%E0%A6%B8%E0%A6%B2%E0%A6%BF%E0%A6%AE-%E0%A6%95%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%BF%E0%A6%95%E0%A7%87%E0%A6%9F-%E0%A6%A6%E0%A6%B2-!-

09/11/2017  

Sunday, 5 November 2017

"সুবোধ তুই পালিয়ে যা, তোর ভাগ্যে কিছু নেই”

উন্নয়নের জোয়ারে ভেসে যাওয়া মধ্যম আয়ের দেশ, “বাংলাদেশের প্রতিদিনের সংবাদপত্রে যে সংবাদটি থাকবেই,”মোস্ট কমন” – সেটি হলো, গৃহবধূ হত্যা, গৃহকর্মী হত্যা, শিশু হত্যা, বাবা আর মেয়ে হত্যা, মা আর ছেলে হত্যা একটা মানুষকে চিরতরে পৃথিবী থেকে সরিয়ে দেয়া আর কোন ইস্যুর পর্যায়ে পরে না


আইন ও বিচার ব্যবস্থার প্রতি মানুষের আস্থা আর শ্রদ্ধা বিস্ময়কর পর্যায়ে পৌঁছে গেছে প্রায় প্রতিদিনই আইন শৃঙ্খলা বাহিনী ধরা পরে ঘুষ সমেত মদীনা সনদে চলা দেশে, কোমল অনুভূতি সম্পন্ন সব ধার্মিক মানুষদের নীতি নৈতিকতা বোধের অবক্ষয় আর কোন উদাহরণের অপেক্ষা রাখে না

পুলিশের হাত থেকে জনগনের মুক্তি নেই তারা জনগনের দন্ডমুন্ডের কর্তা বাঘে ছুঁলে আঠারো ঘা, আর পুলিশে ছুঁলে ঘা থেকে ক্যান্সার, এ জীবনে তার আর রক্ষা নেই ব্যবসায়ী, কর্মজীবি, ছাত্র কাকে না ধরে তারা? সেদিন এক গাড়ি ব্যবসায়ীকে তুলে নিয়ে গিয়ে দশ লক্ষ টাকা মুক্তিপন দাবী করলো, রফা হলো দেড় লক্ষ টাকায় ব্যবসায়ীর স্ত্রী গ্রাম, আত্মীয় স্বজন সব কিছু একাকার করে টাকা আনলো, পুলিশ টাকা নিয়ে তার স্বামীকে ছাড়বে না বলাতে ভদ্রমহিলা তার আঁচল পুলিশের গাড়িতে বেঁধে নিয়েছে আত্মহত্যা করার জন্যে রাজপথে এই ঘটনার সাক্ষী হাজারও মানুষ, সাংবাদিক আর তাদের ক্যামেরা বাধ্য হয়ে পুলিশ সত্তর হাজার টাকা ফেরত দিয়েছে আর ভদ্রলোকের বিরুদ্ধে অন্য মামলা ঠুকে দিয়েছে কেউ মামলা ঠুকেছে সে কারণে  আসামী গ্রেফতার করে নি, গ্রেফতার করে নিজেরা মামলা ঠুকেছে এই সংবাদ পত্রিকায় হেডলাইনহয়েছে পুলিশের নাম এবং ছবিসহ আজ পাঁচ দিন রোজ পত্রিকা চেক করলাম, না, তাদের বিরুদ্ধে  উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থা নেয়ার কথা কোথাও পাইনি পুলিশ এত বেশী খেলে যে মাঝে মাঝে সেইম সাইড (গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের কর্মকর্তারা তো ধরা ছোঁয়ার বাইরে এক সাইড)  হয়ে যায় যেমন, একবার বাংলাদেশ ব্যাঙ্কের এক কর্মকর্তাকে উঠিয়ে নিয়ে নির্যাতন করা হলে, তৎকালীন গর্ভনর মুচালেকা দেন, পুলিশের বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ আনবেন না, কর্মকর্তা ট্রমাটাইজড হয়ে মুক্তি পেয়েছিলেন রক্ষক যেখানে সবসময় ভক্ষকের ভূমিকা পালন করে

বছরের পর বছর ধর্ম চিন্তাবনাম নৈতিকতা চিন্তাচর্চার ফলাফলকি হয়, এক সময় যে এর পরিনতি দুই মেরু দূরত্বে অবস্থান করে তার উদাহরণ হয়ে দাঁড়িয়ে আছে আমাদের সোনারবাংলাদেশ ধার্মিক মানুষরা আপন সন্তানকে খুন করতে পিছপা হন না, “গুনাহহলে মাফ তো আছেই যদিঅন্যায়হত তাহলে সাজা হত এবং মাফ হত না  সাজার ভয় ইহকালেও তাদের নেই, পরকালেও তাদের নেই ইহকালও তারা ম্যানেজ করতে পারবেনপরকাল তো ম্যানেজ হয়েই আছে

দেশে যে কোন অন্যায়ের প্রতিবাদ আইন করে নিষিদ্ধ অথচ পৃথিবীজুড়ে একটি উন্মুক্ত ও উদার পরিবেশের উঁচু হাত ক্রমেই উঁচু হচ্ছে এটা তো তথ্যপ্রবাহের অবাধ যুগ এখানে তো যে যেমন খুশি তেমন মত প্রকাশ করছে প্রতিদিন টেলিভিশনের টকশোগুলোতে এক রাজনৈতিক দলের নেতা অন্য রাজনৈতিক দলের নেতাকে যা খুশি তা-ই বলছেনআর ঠিক সেই সময়ে আইন করে নিষিদ্ধ করে দেয়া হচ্ছে, কি লেখা যাবে আর কি লেখা যাবে না। “৫৭” ধারা যার নাম। ফোর্বস এর বিশ্বের ক্ষমতাশালী নারীর তালিকায় এঙ্গেলা মার্কেলের স্থান এবারও এক নম্বরে এঙ্গেলা মার্কেল এর ছবিতে গোঁফ লাগিয়ে তাকে হিটলার বানানো হয়, বোরখা পরিয়ে মুসলমান শারণার্থী বানানো হয়, কিংবা বিকিনি পরিয়ে বসিয়ে দেয়া হয় অন্য কোনো রাজনীতিবিদের পাশে সমালোচনায় আহত হয়ে টানা চতুর্থ বার ক্ষমতায় থাকা এই নেত্রী তার নাগরিকদেরকে গ্রেফতার বা গুম করে তার ক্ষমতা দেখান না মজার বিষয় হচ্ছে- তিনি তার সমালোচনা বা তাকে নিয়ে ব্যাঙ্গচিত্রের প্রশংসাও করেন কিন্তু বিশ্বের ৩০ তম ক্ষমতাশালী নারীর প্রশংসা ছাড়া সমালোচনা করার কোন রাস্তা তার চাটুকার’রা রাখেনি। আইন করে তার কাজের সমালোচনা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। একটা সুস্থ শাসন ব্যবস্থা বিকাশ ও চলমান থাকার জন্যে গনতান্ত্রিক পদ্ধতিতে গঠনমূলক সমালোচনার কোন বিকল্প নেই। আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের বিরুদ্ধে সিনেটররা স্বজন প্রীতির, দুর্নীতির মামলা ঠুকতে পারে আর বাংলাদেশে একজন পুলিশের অসততার বিরুদ্ধে কথা বলার কোন সুযোগ জনগনের নেই। একজন পাতি নেতার বিরুদ্ধেও কোন মামলা নিতে পুলিশ অপারগতা জানায়।

কারো সাথে কারো আর্দশিক দ্বন্দ্ব থাকলে, মতের অমিল থাকলে, সেই মানুষটা যদি খুন হয় কিংবা তার যদি ক্ষতি হয় তাহলে কি সেটাকে নৈতিকভাবে সমর্থণ করা যায়? যে কারণই থাকুক, একটা মানুষকে বিচারহীন ভাবে প্রাণে মেরে ফেলা কি কোন মনুষ্যত্বের পর্যায়ে পরে?

আজকাল যখন দেখি, এততম বিসিএস পরীক্ষায় ততজন কৃতকার্য হয়ে এদিক ওদিক নিয়োগ পাচ্ছে তখন ভাবি, মুখস্থ বিদ্যার জোরে, সিস্টেমের সুযোগ নিয়ে আর একদল যোগ হল, গোদের ওপর বিষফোঁড়া আবার বাড়লো রাষ্ট্রের দায় জনগনের করের টাকায়, বেতন, বাড়ি, গাড়ি হাকিয়ে তাদের ওপরই লাঠি চালিয়ে ঘুষ খাওয়া ছাড়া আর কোন কাজেই আসবে না ঘুষের রেট ছাড়া অতীতেও দেশে কোন পরিবর্তন আসেনি ভবিষ্যতেও আসার সম্ভাবনা কম

কারো কাছে জবাব চাইছি না হতাশ বাংলাদেশ হতাশ তোমাকে নিয়ে সুবোধ তুই পালিয়ে যা, তোর ভাগ্যে কিছু নেই”


Thursday, 2 November 2017

পেট্রপোল - ইন্ডিয়া

একবার বাই রোডে কোলকাতা যাচ্ছি, বাবা মা, বোনেরা সবাই। তখন নতুন নতুন মা হয়েছি, মেঘময় জগত আমার। সারাদিন মেয়ের পেছনে ছুটি। রাস্তায় কোথাও খাওয়ার বিরতি ছিলো। সবাই খেয়েছি এক সাথে আর আমি এর মাঝে মেয়েকে খাওয়াতে ও ব্যস্ত ছিলাম। নির্দিষ্ট সময়ের পর বাস ছাড়লো, আমরা সবাই বাসে উঠেছি, চলে এসেছি। বাস কোলকাতা নিউমার্কেটের কাছে থামবে থামবে সময়, একজন মোবাইলে কথা বলতে বলতে আমার দিকে এগিয়ে এলো।

আমাকে বললো, দিদি আপনার ব্যাগটা
আমি অবাক হয়ে বললাম, আমার? কি ব্যাগ?
উনি আমার চেয়ে অবাক হয়ে বললেন, ওহ, চেক করে দেখুন তো আপনার হাতের ব্যাগটি কোথায়?

আমি ওভার কনফিডেন্ট, একা একা মেয়ে নিয়ে আমি ট্রাভেল করি আমি, কখনো কিছু ভুলি না আর এই এত জরুরী ব্যাগ ভুলে যাবো!
কাভি নেহী হতেই পারে না। দিল হ্যায় কি মানতা নেহীর পূজা ভাটের মত, ব্যাগ যে হারিয়ে এসেছি, সেটা নিজেই জানি না। জানে, যে রেস্টুরেন্টে খেয়েছি তার লোক আর বাস কোম্পানীর লোক। বোনেরা সবাই মিলে খোঁজাখুজি করে নিশ্চিত হলাম, ব্যাগ অবশ্যই হারিয়ে এসেছি।

তারপর বাসের ম্যানেজার রাগ সামলাতে না পেরে বলল, ব্যাগ রেস্টুরেন্টে ফেলে এসেছেন দিদি। ওরা ফোন করেছে।

আমাদের সবার আক্কেল গুড়ুম। আমার ব্যাগে নিজের ডাচ পাসপোর্ট, মেঘের পাসপোর্ট, ক্রেডিট কার্ড, ব্র্যান্ডেড সানগ্লাস, নতুন কেনা মোবাইল সেট, ডলার, ইউরো, বাংলাদেশি টাকা, ভারতীয় টাকা  ইত্যাদি তো ছিল বটেই, শুধু আমার ছিলো না, সবার পাসপোর্ট ছিলো আমার ব্যাগে। আমি সাবধানী বলে জরুরী কাগজপত্র সব আমার কাছে রাখা হয়েছিলো।

পরবর্তী ধাপ হলো, সারাদিন সবাই জার্ণি করে ক্ষুধা-তৃষ্ণায় কাতর, পাসপোর্ট ছাড়া কোন হোটেলে উঠতে পারবো না। পাসপোর্ট পেট্রাপোল আর এদিকে বাস নিউমার্কেটে পৌঁছে গেছে। এখন উপায়?

বাস কোম্পানীর ম্যানেজার আমাদের জিজ্ঞেস করলো, হোটেল কোনটা বুক দিয়েছেন? ওখানে নিয়ে গেলাম পর, ওনি নিজে জামিন হয়ে আমাদের হোটেলের কাগজ ফিলাপ করলো আর বললো, কাল এ সময় আবার বাস আসবে তখন, পাসপোর্ট, ব্যাগ সব পাওয়া যাবে।

প্রথমেই ধরে নিলাম কি কি জীবনেও পাবো না। পরিবারের সবাই আলোচনা করলাম, পাসপোর্ট বাদ দিয়ে আর কিছু পাওয়ার আশা নেই।
বাসায় ফোন করে ভাইয়াকে বললাম, দুলালকে বলো ভিসা কার্ড ব্লক করে দিতে, ব্যাগ লষ্ট।

সবাই এক সাথে আছি, আনন্দ হচ্ছে, তাইরে নাইরে করছি, ব্যাগের শোক ভুলে গেছি। পরদিন দুপুরে নিউমার্কেটে ঘুরছি তো ঘুরছিই।
আব্বু তাগাদা দিচ্ছে চল বাসের অফিসে যাই, পাসপোর্ট আনি। দুপুর পার করে গিয়ে দেখি, সেই ম্যানেজার ব্যাগ নিয়ে বসে আছে। রাগে কাঁপছে। হোটেলে ফোন করে জেনেছে, আমরা নেই, ঘুরতে বের হয়েছি। ব্যাগের চিন্তা বাদ দিয়ে আনন্দ করছি আর আবার এত দেরীতে এসেছি।
প্রথমে দিলো একটা ঝাড়।

ব্যাগ খুলে অবাক, প্রত্যেকটা জিনিস আছে, প্রত্যেকটা। শুধু একটা লিপিষ্টিক ছাড়া।

আমরা এখনও আলোচনা করি, কি করে এটা সম্ভব। পেট্রাপোল সেই রেস্টুরেন্টটা খুবই সাধারণ একটা ধাবা। তাতে কাজ করে আরও সাধারণ লোকজন। রেস্টুরেন্টের কর্মচারী, ম্যানেজার, বাস ম্যানেজার কেউই তো সে রকম কেউ নন।


উপমহাদেশ নিয়ে কথা হলেই নীচতা, অসততা কিংবা ঝগড়া, বৈষম্যের কথা আসে। অসততার হাজার গল্পের মাঝে এই গল্প গুলোও আসুক।

Thursday, 19 October 2017

প্রোভকেশান – ইনভাইটেশান

আমার শেষ লেখাটির কিছু দুর্বল দিক, এক পাক্ষিকতা আমার কোন কোন শুভানুধ্যায়ী আমার কাছে তুলে ধরেছেন আমাকে "র‍্যাশনাল" হওয়ার উপদেশ দিয়েছেন লেখাটি যেহেতু পাবলিক আছে, আলোচনাও পাবলিক থাকা জরুরী


সেই মেয়েরা কেন ফোন নম্বরগুলো ব্লক করে নি? কেন তারা বিভিন্ন নামে সেইভ করেছিলো? একটি নামে সেইভ করলেই তো পারতো কুত্তাশব্দটি খুব যৌনউদ্দীপক কার এত ঠ্যাকা পরেছিলো, দিনের পর দিন সাড়া না পেলেওমিসকলদিয়ে যাওয়ার? নিশ্চয়ই মেয়েগুলো মজা পাচ্ছিলো


আমি নিজেও বিভিন্ন নামে “নম্বর”সেইভ করতাম একটা সুবিধা অনুভব করতাম, কোন কোন মানুষের ঠ্যাকা শেষ, কার কার অত্যাচার এর হাত থেকে মুক্তি পেলাম, জানা সুবিধে হত হ্যাঁ, হয়ত দরকার ছিলো না কিন্তু সুবিধে লাগতো ২০১৪ সালে যখন বাংলাদেশে যাই, তখন অযাচিত ফোনের হাত থেকে বাঁচার জন্যেআইফোনএরকল ব্লকিং এন্ড আইডেনটিফিকেশানঅপশনটা ব্যবহারের চেষ্টা করেছিলাম কাজ করে নি, জানতে পেলাম শুধুগ্রামীন ফোনপ্রোভাইডারের এই সুযোগ আছে, অন্য প্রোভাইডারদের নেই আমিবাংলালিঙ্ক" এর গ্রাহক
এখন আমাকে জানালো হলো, যে কোন প্রোভাইডারকে ফোন দিয়ে বললেই, যে কোন নম্বর ব্লক করা সম্ভব, সামান্য কিছু ফী এর বিনিময়ে আর এটা নাকি দেশ জুড়ে সকলেই জানে আমি জানি না, জানতাম নাঅন্যদের জন্য এই জায়গাটুকু ওপেন রাখলাম

আমি যে পরিবারে বড় হয়েছি, সেখানে গালি দেয়া সম্পূর্ণ নিষেধ ছিলো যত কিছুই হোক, গালি দিলেই চরম শাস্তি এখন মা-বাবার সাথে না থাকার ফায়দা উঠিয়ে, চরম ভাবে গালি দেই, আর সবার আগে, “কুত্তার বাচ্চাদেই এবং কসম কি কসম, কোন রকম উদ্দীপনা থেকে দেই না, চরম তিতি বিরক্তি থেকেই দেই


প্রসংগতঃ  সুইডেনে এক মিলিয়নের বেশি নারী #Metoo ক্যাম্পেইনে অংশ নিয়েছে। এ নিয়ে সেখানে মিডিয়াতেও ব্যাপক প্রচার হয়েছে। এবার #IHAVE হ্যাশট্যাগ নিয়ে পুরুষরা ক্যাম্পেইন শুরু করেছে। মেয়েদের প্রতি ন্যুনতম খারাপ আচরণ থেকে শুরু করে সব ধরনের সেক্সুয়াল অসদাচরণ যারা করেছে, তাদের স্বীকারোক্তিমূলক ক্যাম্পেইন এটি। চলেন দেখি, “MeToo” এর পাশে কত গুলো হ্যাশ ট্যাগ জমা হয় নারীদের প্রতি সহিংসতায়চতুর্থ খারাপ নগরী ঢাকা”, এটা বৈশ্বিক রিপোর্ট, উইম্যান্স চ্যাপ্টার বা সুপ্রীতি দি কিংবা আমার মত "ইর‍্যাশনাল" কারো বানানো কিছু নয় এক কোটির বেশি মানুষের বসবাস এমন ১৯টি মহানগরে এক জরিপের মাধ্যমে থমসন রয়টার্স ফাউন্ডেশন এ তালিকা তৈরি করেছে। ৩৮০ জন বিশেষজ্ঞের মতামতের ভিত্তিতে এ জরিপ করা হয়েছে। তারপরও, কিছু হ্যাশ ট্যাগ তো আশা করা যেতেই পারে


এরপর আসে সেই যুগান্তকারী "র‍্যাশনাল" প্রবাদ, “এক হাতে তালি বাজে নাআচ্ছা তাই কি?


কেন মেয়েরারেপডহয় আর খুন হয় এক তরফা? ছেলেরা কেন হয় না? আজ পযর্ন্ত কোথাও কি কোন ছেলেরেপডহয়েখুনহয়েছে? যদি এক হাতে তালি না বাজবেজোরকরার প্রয়োজন কি? “খুন বা কেন করে? দু বছরের শিশু থেকে আশি বছরের নারী সবার তালি দ্বারাই বেজে যান? আর এই প্রোভোকড ছেলেরা এক তরফা হয় যে জায়গায় মেয়েরা রোজ অযাচিত স্পর্শ, শব্দ, অশ্লীল গান, অঙ্গ ভঙ্গি মধ্যে দিয়ে যায় তারা কিন্তু প্রভোকড হয় না, তারপরেও কি করে বলি আমরা অবলীলায়, এক হাতে তালি বাজে না?


একটা উদাহরণ না টেনেই পারছি না


ধরুন, একটা মেয়ে আর একটা ছেলে দুজনেই কাজের জন্যে বাইরে গেছে ছেলেটি এবং মেয়েটি সমান পোস্টেই কাজ করে রাতে হোটেলের বারে বসেমেইলচেক করছে, অফিসের টুকটাক কাজ সারছে কাল সকালে প্রোডাক্ট লঞ্চ, খুব স্ট্রেসের মধ্যে আছে ড্রিঙ্ক ছেলেটিও করছে, ড্রিঙ্ক মেয়েটিও করছে মানসিক চাপ দুজনের আছে ছেলেটি, মেয়েটির দিকে চেয়ে হাসলো, মেয়েটি হেসে তার প্রতি উত্তর দিলো টুকটাক কথা হতে থাকলো, কাজের কথা দিয়ে শুরু হলেও ব্যক্তিগত  দিকে মোড় নেয়ার চেষ্টা শুরু হলো অবস্থা আঁচ করে মেয়েটি নিজ কামরায় যাওয়ার প্রস্তূতি নিতে শুরু করলে ছেলেটি তাকেড্রিঙ্ককিনে দিতে, তার সাথে সময় কাটাতে নানা ভাবে উদ্বুদ্ধ করতে থাকে যতক্ষণ মেয়েটি কঠিন কন্ঠে ছেলেটিকে না বললো, আই কেইম হিয়ার ফো মাই ওয়ার্ক এন্ড নট স্লাট


একজন আপনার সাথে হেসে কথা বললে কিংবা আপনার কথা’র জবাব দিলেই প্রভোকড বা ইনভাইটেড ফীল করেন ক্যান ভাই? “ফ্র্যাজিল” তো আপনারা অনেক বেশী। ছোটবেলা’র শোনা গানের মত, “কাছে এসে পাশে বসে কথা বলে যে, এ মন সে আমায় ভালবেসেছে”?


যদিও দেখা যাবে সিরিয়াল দেখার সময় কিংবা খবরের কাগজ পড়ার সময়, এই ভদ্রলোকই মেয়েদের স্বভাব চরিত্র নিয়ে খুব বাজে মন্তব্য করছে কিংবা ওড়না ছাড়া বাইরে যাওয়া সামাজিক অবক্ষয়ের বিপক্ষে ফেসবুকে বিরাট এক প্রবন্ধ লিখে ফেলেছে


মেয়েটি রাগে, ভয়ে, অপমানে কষ্টে কাঁপতে কাঁপতে যদি এই ঘটনা কারো সাথে শেয়ার করে, ছেলে বা মেয়ে নির্বিশেষে, যার সাথেই বলুক না কেন, তাহলে যে মন্তব্যগুলো কানে আসবে তা হলো,
বারে বসাই ঠিক হয় নি, রুমে বসে থাকা দরকার ছিলো
বসলেও ড্রিঙ্ক করা উচিত হয় নি
ড্রিঙ্ক করলেও ছেলেটি সাথে কথা বলা ঠিক হয় নি তার বোঝা উচিৎ ছিলো, ইত্যাদি ইত্যাদি ইত্যাদি
কিন্তু মেয়ে বলে সে তো অফিসে কাজে কোন ছাড় পাবে না তাহলে, মেয়ে বলে তাকেই কেন সব কিছু বুঝে বসে থাকতে হবে? বরং একটি মেয়ের মাথায় তো, অফিসের বোঝা বাইরে সংসার, সন্তান আরও কিছু বোঝা চাপ থাকে একটা ছেলে’র চেয়ে একটা মেয়ে এমনিতেই অনেক বেশি চাপ নেয়।


একই প্রশ্ন যুগ থেকে যুগ অব্ধি ঘুরতে থাকে,
কেন বাসে উঠলো মেয়েটি? ভাল মেয়েরা সন্ধ্যা রাতে একা বাসে ওঠে? শুনেছেন কখনো?
কেন মেলা গেলো মেয়েটি? ভদ্রলোকেরা মেয়েরা কখনো মেলায় যায়? শুনেছে কেউ কখনো?
কেন বাড়ি বাইরে পা দিলোসৃষ্টিকর্তা এ জন্যেই মেয়েদের চলাফেরায় দিক নির্দেশনা দিয়েছেন।
কেন আসলে তারা জন্ম নিলো? সৃষ্টিকর্তা মেয়েদের সৃষ্টি না করলেও তো পারতেন।


আর এই কাজ গুলো যারা করছে, সেই ছেলে গুলো কোন পরিবারের সন্তান? তাদের বাসে চড়া, মেলায় যাওয়া, বাইরে যাওয়া কিছুতেই কোন বাঁধা নেই কেন?


আচ্ছা, মেয়েরা চাঁদে গেছে জানেন তো? নাসায় কাজ করে মেয়েরা জানেন সেটা? ক্যান্সারের ওষুধের গবেষনায় মেয়েরা আছে, জানেন? মেয়েরা যে টাকা রোজগার করে তা দিয়ে ছেলেরা যত টুকু জিনিস দোকানে কিনতে পায়, ঠিক ততটুকুই পাওয়া যায়, অবাক কান্ড তাই না?


“এবিউজ” কথাটা’র মানে কি জানি সবাই? “এবিউজ” মানে কিন্তু “ধষর্ন” নয়। অযাচিত প্রতিটি “স্পর্শ” “শব্দ” “দৃষ্টি” ইত্যাদি সবই বাই ল এবিউজের আন্ডারে পরে, ওয়ার্ল্ড ওয়াইল্ড। মেয়েরা “ফ্র্যাজিল” বলেই হয়ত এই আইন তৈরী করা হয়েছে। দৃষ্টিতেই যেহেতু ভেঙ্গে পরে, তাই না? তবে, ছেলেরাও এই আইনের আশ্রয় নিতে পারে। “এবিউজ” আপনি ভারবালিও করতে পারেন“ঐ ছেমড়ি তোর ওড়না কই” ভারবালি এবিউজ। এবিউজ কিন্তু মেয়েরাও করে। পাশের বাসা’র ভাবী’র স্বাস্থ্য সংক্রান্ত আলোচনা কিন্তু ভারবাল এবিউজে’র মধ্যেই পরে।


আলিয়া ভাটের ভিডিওটি এই পোস্টেও যোগ করলাম, যাদের এবিউজ সম্পর্কে ধারনা স্পষ্ট নয় তাদের জন্যে।
ফেসবুকে দারুন দারুন কিছু লেখা পড়তে পাওয়া যায়। যত সম্ভব ২০১৬ সালে ফারজানা নীলা সাদা-সাপ্টা এ ধরনের কিছু লিখেছিল,


কেউ শর্ট জামা পরে মানে এই না যে সে আপনার সাথে শুতে চায়
কারো অনেক ছেলে বন্ধু মানে এই না যে সে সবার সাথে শুয়ে বেড়ায়
কেউ তার প্রেমিকের সাথে থাকে মানেই এই না যে সে সবার সাথে ঘুমায়
কেউ মদ সিগারেট খাওয়া মানেই এই না যে সে খুব সহজ লভ্য
রাত বারোটা পর্যন্ত একটা মেয়ে বাইরে থাকার মানেই এই না যে
সে কারো সাথে থেকে এসেছে
কেউ পেশায় মডেল বা নায়িকা মানে এই না যে সে কলগার্ল
প্রমোশোন পেলেই ধরে নেবেন না বসের সাথে ইটিশ পিটিশ আছে
কলগার্ল হলেও ধরে নেয়া’র কোন কারণ নেই, যে কেউই চাইলে পাবে।

“মেয়ে” নিয়ে যাদের শুধু এই ভাবনা গুলো আসে তাদের উদ্দেশ্যে লেখা ছিল।  
এই লেখায় কি কি “ইর‍্যাশন্যাল” ভুল আছে, জানতে অপেক্ষায় রইলাম। আলোচনায় বাঁধা নেই।